শহীদ শঙ্কুর মা বাস করেন জীর্ণশীর্ণ বাড়িতে

19

রংপুর, ০৫ মার্চ।। প্রহ্লাদ রায়।।  ১৯৭০ সালে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ জয়ের পর সারাদেশের মতো উদ্বেলিত হয়েছিলো রংপুরের মানুষ। ইয়াহিয়া খান একাত্তরের ৩ মার্চ জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহ্বান করলেও ১ মার্চ তা স্থগিত হওয়ার প্রতিবাদে ২ মার্চ ঢাকায় এবং ৩ মার্চ সারাদেশে হরতাল ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।এরই ধারাবাহিকতায় রংপুরে হরতাল পালিত হয়।

শহরের কাচারি বাজার থেকে সকাল সাড়ে নয়টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয় । মিছিলে রংপুর কৈলাশ রঞ্জন স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র শঙ্কু সমজদারও অংশ নেন। মিছিলটি জাহাজ কোম্পানির মোড় হয়ে স্টেশনের দিকে  এগুতে থাকলে পুলিশ গুলি চালায়। ঘটনাস্থলেই শহীদ হন শঙ্কু সমাজদার।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় আরও দুজনের। একই দিন বিকেলে রাজধানীর মৌচাক মোড়ে শহীদ হন কলেজ ছাত্র ফারুক ইকবাল। রংপুর শহরের কামাল কাছনায় জীর্ণশীর্ণ বাড়িতে বাস করছেন শঙ্কুর মা শত বছর বয়সী দীপালি সমাজদার। মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় শঙ্কুর নাম গেজেটভুক্ত হয়েছে। ছেলের এই বীরত্বগাঁথা স্মৃতির কথা স্মরণ করে মা দীপালি সমজদার বলেন, প্রতি ঘরে ঘরে শঙ্কুর মতো ছেলেরা জন্ম নিক। কাজ করুক দেশ মাতৃকার সেবায়।