রংপুরে যেভাবে পালিত হচ্ছে লকডাউন

5

রংপুর থেকে প্রহ্লাদ রায়।। ০১ জুলাই।। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ‘কঠোর লকডাউন’ কঠোরভাবে পালন করা হচ্ছে দেশের উত্তরের জনপদ রংপুরে। লকডাউনে ফাঁকা রয়েছে জেলার বিভিন্ন সড়ক ও পথঘাট। রাস্তায় কিছু রিকশা, মোটরসাইকেল এবং জরুরি সেবার গাড়ি চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে। বন্ধ রয়েছে শহরের সব মার্কেট। শহরে এখন সুনসান নীরবতা।

আজ সরেজমিনে দেখা গেছে, পুরো নগরীতে বাড়ানো হয়েছে পুলিশি টহল। পুলিশ নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অবস্থান নিয়ে যান চলাচল এবং জনগণের চলাচল সীমিত করছে। এছাড়াও সরকারি বিধিনিষেধ মেনে বন্ধ রয়েছে দোকানপাট। সকাল থেকে নগরের বিভিন্ন এলাকায় জনসমাগম ঠেকাতে মাইকিং করে ঘরে থাকতে উদ্বুদ্ধ করছে পুলিশ। লকডাউনে নগরের দোকানপাট, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, অফিস-আদালতসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে বসানো হয়েছে পুলিশি চেকপোস্ট। প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়া মানুষদের ফেরত পাঠানো হচ্ছে।

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নগরের মডার্ন অর্জন মোড়, পার্কের মোড়, লালবাগ, শাপলা চত্বর, জাহাজ কোম্পানি মোড়, পায়রা চত্বর, ডিসির মোড়, মেডিকেল মোড়, ধাপ চেকপোস্ট, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, সাতমাথা, মাহিগঞ্জ,কামাল কাছনা বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে লকডাউন বাস্তবায়নে সিটি করপোরেশন, জেলা প্রশাসন, সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ মাঠে কাজ করছে। নগরে জরুরি সেবার আওতাভুক্ত ওষুধ, হোটেল, রেস্তোরা খাদ্য সামগ্রীর দোকান খোলা রয়েছে। চলাচল করছে বিধিনিষেধের আওতামুক্ত যানবাহন। তবে অলিগলিতে, মোড়ে মোড়ে ও বাজারে মানুষের অহেতুক ঘোরাফেরা ও উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

ঘর থেকে বের হওয়া মানুষজনকে বিভিন্ন সড়কে পুলিশি জেরার মুখে পড়তে হয়েছে। পরিচয়পত্র যাচাই-বাছাই করে ছাড়ছে ট্রাফিক পুলিশ। সীমিত লকডাউনে মোটরসাইকেল, মাইক্রোবাস, ব্যক্তিগত প্রাইভেটকার চলতে দেওয়া হলেও এখন তা চলতে দেওয়া হচ্ছে না। রংপুর-ঢাকা মহাসড়ক অনেকটাই ফাঁকা রয়েছে। আঞ্চলিক সড়কগুলোতে নেই পরিবহনের চাপ। তবে পণ্যবাহী ট্রাক, পিকআপ ভ্যানসহ হালকা যানবাহন চলাচল করছে।

পুলিশের পাশাপাশি সড়কে সেনাবাহিনী ও বিজিবি সদস্যদের টহল দিতে দেখা গেছে ।