ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তান্ডবের ঘটনায় ৪৫টি মামলা

57

ডেস্ক রিপোর্ট।। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তান্ডবের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত ৪৫টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর মধ্যে সদর মডেল থানায় ৪০টি মামলা দায়ের করা হয়। আশুগঞ্জ থানায় ২টি, সরাইল থানায় ২টি ও আখাউড়া রেলওয়ে থানায় ১টি মামলা দায়ের করা হয়।

৪৫টি মামলায় ৩০ হাজারেরও বেশি লোককে আসামি করা হলেও এর মধ্যে মাত্র ৩২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে হরতালের দিন বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ভাঙচুরকারী আরমান আলিফ (২২)। গত ৪ মে রাতে সদর উপজেলার বিশ্বরোড এলাকা থেকে র‌্যাব-১৪ এর একটি দল গ্রেফতার করে। পরে র‌্যাব সদস্যরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার কাজীপাড়ায় আরমান আলিফের ভাড়া বাসায় তল্লাশী চালিয়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ভাঙ্গার কাজে ব্যবহৃত একটি শাবল, একটি বিদেশী পিস্তল, ২টি ম্যাগাজিন এবং ৪ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, তান্ডবের সময় ভিডিও ফুটেজ ও স্থির ছবি দেখে হামলাকারিদের শনাক্ত করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বেশ কয়েকজনকে শনাক্ত করে তাদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। হেফাজত নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) ইশতিয়াক আহমেদ বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তান্ডবের ঘটনায় মঙ্গলবার পর্যন্ত বিভিন্ন থানায় ৪৫ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর মধ্যে সদর মডেল থানাতেই ৪০টি মামলা দায়ের করা হয়। ৪৫টি মামলায় ৩০ হাজারেরও বেশী লোককে আসামী করা হয়েছে। আইন-শৃংখলা বাহিনীর হাতে এ পর্যন্ত ৩২ জন গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তিনি বলেন, ভিডিও ফুটেজ দেখে আসামীদের সনাক্ত করা হচ্ছে।

অন্যদিকে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও পুলিশের ওপর হামলা ও ভাংচুরের অভিযোগে হেফাজতের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হকসহ হেফাজতে ইসলামের ৮৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বুধবার (৭ এপ্রিল) বিকালে এ মামলা দায়ের করা হয়। করেন। আর আগে, গত ৫ এপ্রিল ঢাকার ঘটনায় হেফাজতের নেতা মামুনুল হকসহ হেফাজতে ইসলামের ১৭ জন নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার (৫ এপ্রিল) রাজধানীর পল্টন থানায় আরিফুজ্জামান নামে এক ব্যক্তি বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন।