টানা ৩৬ ঘণ্টা পানি, গ্রিন টি ও ব্ল্যাক কফি ছাড়া কিছু খান না ঋষি সুনাক

3

ডেস্ক রিপোর্ট।। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক প্রতিদিন কী খান, জানলে আপনার কান্না পাবে। এমন ডায়েট করে তিনি দেশও পরিচালনা করেন! সপ্তাহের শুরুতে টানা ৩৬ ঘণ্টা তিনি ‘উপবাস’ করেন। এই সময় তিনি কেবল পানি, গ্রিন টি আর ব্ল্যাক কফি খান। অনেকটা ওয়াটার ফাস্টিংয়ের মতো। তবে সেখানেও সবজির পাতলা স্যুপ বা চিকেন স্যুপ খাওয়া যায়। তবে সুনাক কিছুই খান না।

প্রধানমন্ত্রীর কাছের এক সূত্র সানডে টাইমসকে জানায়, রোববার বিকেল পাঁচটা থেকে মঙ্গলবার ভোর পাঁচটা পর্যন্ত চলে এই উপবাস। এ সময় প্রধানমন্ত্রী কেবল নিজেকে ‘হাইড্রেটেড’ রাখার দিকে নজর দেন। আর ডিটক্স হিসেবে খান গ্রিন টি। ঘুম তাড়াতে ক্যাফেইন হিসেবে নেন ব্ল্যাক কফি। ব্যস, এটুকুই।

এই ডায়েটের কথা শুনলে আপনার মনে হবে, ৪৩ বছর বয়সী ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই প্রধানমন্ত্রী বোধ হয় বাড়াবাড়ি করছেন। দ্য গার্ডিয়ান এ বিষয়ে জানতে চেয়েছে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব সারের পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক অ্যাডাম কলিন্সের কাছে। তিনি জানান, সুনাকের ডায়েট ‘৫: ২ ডায়েট’-এরই একটি বিশেষ সংস্করণ, এটি আরও বেশি কার্যকর। ‘৫: ২ ডায়েট’-এ ফল পাওয়া যায় ধীরে ধীরে। তবে তা দীর্ঘস্থায়ীভাবে শরীরকে ভালো রাখে।

বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় ও স্বাস্থ্যকর ডায়েট ‘৫: ২’। লাখো স্বাস্থ্যসচেতন এই কৌশল অনুসরণ করে ভালো ফল পেয়েছেন। এই পদ্ধতিতে সপ্তাহের পাঁচ দিন স্বাভাবিক খাবার খাওয়া যাবে। আর দুই দিন ক্যালরি নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। কোনো দিনই ৬০০ ক্যালরির বেশি কিছু নেওয়া যাবে না। ৫০০ ক্যালরির ভেতরে আটকে ফেলা গেলে ভালো হয়।

ক্যালরি কাউন্ট করে ডায়েট করা খুবই সহজ। কেননা, আপনি তখন সেই খাবারগুলোই খাবেন, যেগুলোর ক্যালরি কাউন্ট করা সহজ। বার্গার, পিৎজা, বিরিয়ানি-এগুলোর প্রতিটি উপাদান আলাদা আলাদা করে পরিমাণ আর ক্যালরি গোনা সহজ কাজ নয়।

যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব বাথের মেটাবলিক সাইকোলজি বিভাগের অধ্যাপক জেমস বেটস বলেন, এ পদ্ধতিতে শরীরের শক্তি সংরক্ষণ পদ্ধতিতে হুট করে কোনো পরিবর্তন আসে না। লম্বা সময়ে যে পরিবর্তন হয়, শরীর তার সঙ্গে সহজেই মানিয়ে নেয়। জেমস বেটস বলেন, এভাবে আপনার শরীরের যে চর্বি জমা আছে, সেটাকেই একটু একটু করে ভেঙে ‘ফ্যাট ফুয়েল’ কে ব্যবহার করছেন। ‘মেটাবলিক ফ্লেক্সিবিলিটি’র জন্য এটা খুবই ভালো। বর্তমান সময়ের জীবনযাপন, স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট ও দীর্ঘ স্বাস্থ্যকর জীবনের জন্য এই ডায়েট মানানসই।

তবে বেটস আরও যোগ করেন, এই ডায়েটের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াস্বরূপ আপনি ‘মাসল’ হারিয়ে ফেলতে পারেন। আর শুরুর দিকে ক্লান্ত লাগতে পারে। তবে ধীরে ধীরর শরীর জমিয়ে রাখা ফ্যাট থেকে শক্তি উৎপাদনে অভ্যস্ত হয়ে যাবে, মানিয়ে নেবে।

তবে সপ্তাহে দুই দিন ডায়েট করে বাকি পাঁচ দিনের কোনো এক দিন যদি সেটা ‘পুষিয়ে দেন’, তাহলে কিন্তু হবে না!