করেনাভাইরাস ঃ চীন-মার্কিন ছায়াযুদ্ধ কোন পথে

2

॥ আন্তর্জাতিক প্রতিবেদক ॥

গত ডিসেম্বরে চীনের উহানে করোনাভাইরাস দেখা দেয় এবং এর কয়েক মাসের মধ্যে দুনিয়াজোড়া তা’ ছড়িয়ে পড়ে। বিশ্বের প্রায় ২১৫টি দেশে ও অঞ্চলে এ পর্যন্ত এ মহামারীতে আক্রান্ত হয়েছে ২,৯৪,৮৭,১০০ জন, আর মারা গেছে ৯,৩৩,৭২১জন। মহামারী এখনো চলছে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নানান দেশ ভ্যাকসিন আবিষ্কারের পথে অগ্রগতির কথা বললেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বারবার বলছে, আগামি কয়েক বছর ধরে মানুষের এ ভাইরাসের সাথে বসবাস করতে হবে। কবে যে ভ্যাকসিন প্রয়োগ হবে মানবদেহে নিশ্চিত করে তা’ কেউ বলতে পারছেন না। তবে তা’যে সামনের বছরের মাঝামাঝিতে হতে পারে এমন ভবিষ্যদ্বাণী কেউ কেউ করছেন। ভ্যাকসিনের বিশ্ববাজার দখলের তীব্র প্রতিযোগিতা চলছে যা’ এখন দৃশ্যমান।

করোনাভাইরাসের উদ্ভবকে অনেকে ‘মানবের প্রতি প্রকৃতির হিংস্রতা’ হিসেবে বলে আসছেন এখনও। বিশ্ববাসীর বৃহদাংশ তা বিশ্বাসও করছেন। কেননা, বিজ্ঞানীদের কাছে উদ্ভবের কারণটি এখনও অজানা অথবা তারা দোদুল্যমানতায় ভুগছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনাভাইরাস মহামারী হিসেবে বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ার পরপরই যখন চীন ও চীনা সরকারকে লক্ষ্যবস্তু করে নানান বাক্যবাণে জর্জরিত করছিলেন তখন অনেকে এ মর্মে মন্তব্য করেন যে, করোনাভাইরাস নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাঁর স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে চীনের বিরুদ্ধে ‘ছায়াযুদ্ধ’ শুরু করেছেন। কিন্তু সাম্প্রতিককালে চীনের উহানের ল্যাবের এক ভাইরোলজিষ্ট লি মেং ইয়েন ব্রিটেনের এক টকশো-তে যে তথ্য দিয়েছেন তাতে বিশ্বাস করার কারণ রয়েছে যে, ট্রাম্প ছায়াযুদ্ধ শুরু করেননি, বরং বাস্তবতা নিয়ে চীনের বিরুদ্ধে করোনাভাইরাস ইস্যুতে রুখে দাঁড়িয়েছেন।

লি মেন ইয়েন-র জন্ম হংকংয়ে। চীনের উহানের ল্যাবের এক ভাইরোলজিষ্ট হিসেবে তিনি কাজ করতেন। চলতি বছরের শুরুতে চীন সরকার তাঁকে হত্যা করতে চেয়েছিল বলে ভয়ে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে যান। বৃটেনের এক টকশো’তে সম্প্রতি হাজির হয়ে তিনি দাবি করেছেন, চীন সরকার নিয়ন্ত্রিত এক ল্যাব থেকে এ ভাইরাস বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে, উহানের স্থানীয় বাজার থেকে নয় যা’ দাবি করে আসছে চীন সরকার। লি মেন ইয়েনের ভাষ্যানুযায়ী, করোনাভাইরাস প্রকৃতির তৈরী নয়, মানুষের তৈরী। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলী মিরর খবর দিয়েছে, অল্প কয়েকদিনের মধ্যে তিনি এব্যাপারে বিস্তারিতভাবে বিশ্ববাসীকে জানাবেন।

বাকযুদ্ধের আচরণে চীন-মার্কিন ছায়াযুদ্ধ কোন দিকে বাঁক নেয় এখন তা-ই দেখার বিষয়।