ঐক্য পরিষদের আহ্বানে সারাদেশে সমাবেশ ও বিক্ষোভের আরও খবর

12

দেশের বিভিন্নস্থানে সাম্প্রদায়িক উস্কানি এবং  ধর্মীয় জাতিগত সংখ্যালঘুদের বাড়িঘর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান-উপাসনালয়ে অব্যাহত হামলা, ভাংচুর, লুটপাট ও ভূমি জবরদখলের প্রতিবাদে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের আহ্বানে ১১ আগস্ট সারাদেশে সমাবেশ, মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। এখানে আরও কয়েকটি জেলা থেকে বিলম্বে প্রাপ্ত খবর দেওয়া হলো।

কুমিল্লা

কুমিল্লা থেকে তাপস চন্দ্র সরকার জানান, ১১ আগস্ট বুধবার বিকেলে কুমিল্লা পূবালী চত্বরে কেন্দ্রীয় কমিটির কর্মসূচির অংশ হিসেবে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

এতে অংশগ্রহণ করেন- বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি চন্দন কুমার রায় ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ তাপস কুমার বকসী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কমল চন্দ খোকন,  তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. তাপস চন্দ্র সরকার, ঐক্য পরিষদ নেতা এ্যাড. মানিক কুমার ভৌমিক ও এ্যাড. স্বর্ণকমল নন্দী পলাশ, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কুমিল্লা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্মল পাল, বাংলাদেশ যুব ঐক্য পরিষদ কুমিল্লা মহানগর সভাপতি কানাই নাগ ও সাধারণ সম্পাদক বরুণ চক্রবর্তী প্রমুখ।

এদিকে, এর আগে একই স্থানে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কুমিল্লা মহানগর শাখার উদ্যোগে মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে বক্তারা বলেন, অচিরেই দেশের বিভিন্নস্থানে সাম্প্রদায়িক উস্কানি এবং  ধর্মীয় জাতিগত সংখ্যালঘুদের বাড়ি-ঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান-উপাসনালয়ে হামলা, ভাংচুর, লুটপাট ও ভূমি জবর দখলকারীদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

সাতক্ষীরা

সাতক্ষীরা থেকে শুভ্র ঘোষ জানান, বুধবার সাতক্ষীরা নিউ মাকের্ট চত্বরে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি বিশ^জিৎ সাধু। সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার শীলের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বিশ^নাথ ঘোষ, ঐক্য পরিষদের সভাপতিমন্ডলীর অন্যতম সদস্য এ্যাড. সোমনাথ ব্যানার্জি, সুধাংশু শেখর সরকার, গৌর চন্দ্র দত্ত, উন্নয়নকর্মী মাধব দত্ত। সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আক্তার হোসেন, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক এবং বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির পেশাজীবী বিষয়ক উপ-সম্পাদক ডা. সুব্রত ঘোষ, কার্যকরী সদস্য এ্যাড. সৈয়দ জিয়াউর রহমান বাচ্চু, বংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) সাতক্ষীরা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. মনোয়ার হোসেন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের সভাপতি ওবায়েদুস সুলতান বাবলু, বাংলাদেশ জাসদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ইদ্রিস আলী, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আবু আফফান রোজ বাবু, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি শেখ সিদ্দিকুর রহমান, এ্যাড. তারক মিত্র, জেলা মন্দির সমিতির সাধারণ সম্পাদক রঘুজিৎ গুহ, ঐক্য পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক নিত্যনন্দ আমীন, অধ্যক্ষ শিবপদ গাইন, প্রভাষক বাসুদেব সিংহ, সাংগঠনিক সম্পাদক অসীম দাস সোনা, প্রচার সম্পাদক বিকাশ চন্দ্র দাশ, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক থিওফিল গাজী, যুব ঐক্য পরিষদের আহবায়ক ইন্দ্রজিৎ সাধু, যুগ্ম আহবায়ক মিলন কুমার রায়, মিঠুন ব্যানার্জী, সদস্য সচিব রণজিত ঘোষ, সদস্য রণজিত সরকার, মিলন বিশ^াস, প্রশান্ত অধিকারী, কর্ণ বিশ^াস কেডি, ছাত্র ঐক্য পরিষদের আহবায়ক সুজন বিশ^াস, মহিলা পরিষদের সভানেত্রী জ্যোৎ¯œা দত্ত, ঐক্য পরিষদের কোষাধ্যক্ষ রায় দুলাল চন্ত্র, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের মিন্টু হালদার প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ধর্মীয় সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রণয়ন করতে হবে। এ ধরনের ঘটনা যাতে পুনরায় না ঘটে সেজন্য সরকারকে কঠোর ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর বর্বর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক বিচারের দাবি জানান নেতৃবৃন্দ।

রাজশাহী

রাজশাহী থেকে রুদ্র ধর জানান, বুধবার বিকেল চারটায় রাজশাহী সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ রাজশাহী মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক অসিত ঘোষ, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ রাজশাহী মহানগর শাখার সভাপতি অলোক দাস, সাধারণ সম্পাদক শরৎ চন্দ্র সরকার,  হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের রাজশাহী মহানগর শাখার যুগ্ম-সম্পাদক অধ্যক্ষ রণজিৎ সাহা, সাংগঠনিক সম্পাদক উজ্জ্বল ঘোষ, মহিলা ঐক্য পরিষদের সভাপতি বরুণা শীল, ছাত্র ঐক্য পরিষদের আহবায়ক রুদ্র ধর সহ যুব ঐক্য পরিষদ, বিভিন্ন থানা ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ সহ আরো অনেকে।

বক্তারা দেশের নানা জায়গায় ঘটে যাওয়া সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদ ও হামলার সাথে জড়িত সকলকে আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তিপ্রদানের দাবি জানান।