উইঘুর মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্নের দাবি আলেমদের

47

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক।। উইঘুর মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্নের দাবি জানিয়েছে কয়েকটি সমমনা ইসলামি দলের নেতারা। এছাড়া উইঘুর মুসলমানদের উপর জুলুম নির্যাতন বন্ধ না করলে, চীনা পণ্য বয়কটের আহ্বান জানান বক্তারা। শুক্রবার (১২ মার্চ) বাদ জুমা বায়তুল মোর্কারমের উত্তর গেটে এক বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে এ দাবি জানানো হয়।

বিক্ষোভ পূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদশে জনসেবা আন্দোলনের চেয়ারম্যান মুফতি ফখরুল ইসলাম বলেন, চীন যদি সেদেশের উইঘুর মুসলমানদের উপর নির্যাতন বন্ধ না করে, সারাবিশে^র মুসলমানরা চুপচাপ বসে থাকবে না। কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে। সরকারকে বলবো, চীনের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে সতর্ক করা হোক। যাতে করে আর যেন চীনের মুসলমানেরা নির্যাতিত না হয়। যদি মুসলমান নির্যাতন বন্ধ না করা হয়, বাংলাদেশে কোনো চীনা নাগরিককে বরদাস্ত করা হবে না।

তিনি বলেন, এই চীনই মিয়ানমারের মুসলমানদের বাংলাদেশে পুশিংয়ে সহায়তা করেছে। বাংলাদেশ সরকার আরাকান  রোহিঙ্গা মুসলমানদের জায়গা দিয়েছে। জাতিসংঘের মাধ্যমে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ফেরত নেয়া হোক। তাদের ভিটে মাটি ফেরত দিতে হবে, পুনর্বাসন করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, চীনের মনে রাখা উচিত বিশে^ অনেক শক্তিশালী দেশ ছিল, ধ্বংস হয়ে গেছে। উইঘুর নির্যাতনের জন্য চীনও বিশে^র মানচিত্র থেকে মুছে যাবে।

খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব আলহাজ্ব আজম খান বলেন, চীন সরকার উইঘুর মুসলমানদের উপর দীর্ঘদিন ধরে জুলুম নির্যাতন চালাচ্ছে। বিশে^র সকল গণতান্ত্রিক দেশকে অত্যাচারী চীন সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মুফতী জাকির হুসাইন । আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জনসেবা আন্দোলনের মহাসচিব মুফতী ইয়ামিন হুসাইন আজমী, মুফতী আব্দুল্লাহ, মুফতী আব্দুল আলিম, মুফতী আবু দারদা, মাওলানা দেলওয়ার হুসাইন প্রমুখ।