অধ্যক্ষ গোপাল কৃষ্ণ হত্যা : মৃত্যুদন্ড কমিয়ে আমৃত্যু কারাদন্ড আপিল বিভাগে

6

।। নিজস্ব বার্তা পরিবেশক।। চট্টগ্রামের নাজিরহাট কলেজের অধ্যক্ষ গোপাল কৃষ্ণ মুহুরী হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় নিয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তাঁর স্ত্রী উমা মুহুরী। তবে তিনি হতাশার সুরে বলেন, ‘আমার কিছু বলার নেই।’

গোপাল কৃষ্ণ মুহুরী হত্যা মামলায় মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত তিন আসামির সাজা সংশোধন করে ৬ অক্টোবর আমৃত্যু কারাদন্ড দিয়েছেন আপিল বিভাগ। আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলীর নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের ভার্চ্যুয়াল আপিল বেঞ্চ আজ মঙ্গলবার এই রায় দেন। তিন আসামি হলেন আলমগীর কবির, তসলিম উদ্দিন মন্টু ও আজম।

গোপাল কৃষ্ণ মুহুরীর স্ত্রী উমা মুহুরী আজ সকালে নিজ বাসায় ছিলেন। রায়ের পর তিনি বলেন, হাইকোর্টে আসামিদের মৃত্যুদন্ড বহাল ছিল। এখন আপিল বিভাগ আসামিদের আমৃত্যু কারাদন্ড দিয়েছেন। আমার বলার কিছু নেই।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে উমা মুহুরী বলেন, যাঁর এ রকম হয়েছে, যাঁরা প্রিয়জন হারিয়েছেন, তাঁরাই কেবল জানেন কষ্ট কী!

২০০১ সালের ১৬ নভেম্বর সকালে চট্টগ্রামের জামাল খান রোডে অধ্যক্ষ গোপাল কৃষ্ণ মুহুরীর বাসায় ঢুকে তাঁকে হত্যা করে অস্ত্রধারী জামায়াত-শিবির কর্মীরা। এ ঘটনায় তাঁর স্ত্রী উমা মুহুরী বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

২০০৩ সালের জানুয়ারিতে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আদালত থেকে মামলাটি চট্টগ্রাম বিভাগীয় দ্রুত বিচার  ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। একই বছরের ৬ ফেব্রুয়ারি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল চার আসামিকে মৃত্যুদন্ড দেন। আর চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।